এ জগতে কেউ আপন নয়

যবনিকায় পড়ে আছে কত কত আপন নৃ,
দুখের চরণে ঢালে জল ফিরিবে কবে শান্ত;
তবু যেন মনে হয়- জীবন নিলয়ে নেই সামান্য টুকু হর্ষ৷

মাতা মোরে রেখেছিল সকল যত্নে নিজ গর্ভে,
পিতা কভু চাহিবার তরে অভাব রাখেনি অপূর্ণ;
তবু যেন মনে হয়- জীবন নিলয়ে নেই সামান্য টুকু হর্ষ৷

একসাথে সবে চলি মোরা ভাই বোন কত স্নেহ্,
কিছু ভুল নিয়মে ভেঙে যায় তাহা থাকেনা সমূহ;
তবু যেন মনে হয়- জীবন নিলয়ে নেই সামান্য টুকু হর্ষ৷

নীল আকাশে কৃষ্ণ নীরদ জড় হয় শত খণ্ড,
ধরিত্রী তৃষ্ণায় পানে রয় একবিন্দু পাবে অন্ত;
তবু যেন মনে হয়- জীবন নিলয়ে নেই সামান্য টুকু হর্ষ৷

হিরণ্য বর্ণে পূর্বে উঁদিত সকালে হাসছে মিত্র,
কপাট তাহার বন্ধ চারিধারে একা বন্দি বিরহ্;
তবু যেন মনে হয়- জীবন নিলয়ে নেই সামান্য টুকু হর্ষ৷

দেবতার বেশে পক্ষী সবে কন্ঠে কথা কয় অপূর্ব,
দুপুর রোদে গেছে শুকিয়ে হাড়ের সাথে নেই গোস্ত;
তবু যেন মনে হয়- জীবন নিলয়ে নেই সামান্য টুকু হর্ষ৷

বৈঠায় তরণী বায় গাঙের কিনারায় ফুটেছে পুষ্প,
মুগ্ধ ঘ্রাণে সুভাস কারে দেয় মাঝির মন বিচলিত;
তবু যেন মনে হয়- জীবন নিলয়ে নেই সামান্য টুকু হর্ষ৷

সোহাগ এঁকেছে সংসারে সহধর্মিণী, কন্যা ও পুত্র,
বেহুঁশের সমাজ জাগ্রত বিনয়ে অযথা করে দ্বন্দ্ব;
তবু যেন মনে হয়- জীবন নিলয়ে নেই সামান্য টুকু হর্ষ৷

English Translate


  • পড়া হয়েছেঃ ২৬
  • লেখার সময়ঃ রবিবার, ১১ আগস্ট ২০১৯
  • লেখার স্থানঃ Oman
  • প্রকাশিতঃ রবিবার, ১১ আগস্ট ২০১৯

বিঃদ্রঃ মুক্তকলাম সাহিত্য ডায়েরি, লেখকের মতপ্রকাশের পূর্ণ স্বাধীনতার প্রতি সম্মান রেখে, কোন লেখা সম্পাদনা করা হয়না। লেখার স্বত্ব ও দায়-দায়িত্ব শুধুমাত্র লেখকের।